মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

বেতিয়ারা বুদ্ধিজীবি স্মৃতিসৌধ

বেতিয়ারা চৌদ্দগ্রাম উপজেলার একটি প্রত্যন্ত গ্রাম। ১৯৭১সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের শেষদিকে ২নং সেক্টরের চৌদ্দগ্রাম অংশে গেরিলা তৎপরতা জোরদার করা হয়েছিল তারই অংশ হিসেবে সীমান্তবর্তী ৩/৪টি ব্রীজ গোয়েন্দা শাখার সহযোগিতায় ধ্বংশ করে হানাদার বাহিনীর স্বাভাবিক যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়া হয়।

১৯৭১ সালের ১১ নভেম্বর রাত ১২টার পর কমান্ডার ইয়াফেজ ওসমান ,ছাত্র নেতা মঞ্জুরুল আহসান খান,নিজাম উদ্দিন, আজাদ, আওলাদ হোসেন সহ স্থানীয় ক্যাম্পের সহযোগিতায় ড্রাইভার আবদুল কাদের ও মান্নান সহ ঢাকা - চট্টগ্রাম মহাসড়ক পার হওয়ার সময়ে মহাসড়কের পাশে বট গাছের আড়ালে ওঁৎপেতে  থাকা হানাদার বাহিনী অতর্কিত আক্রমন চালায় । এ হামলায় ৯জন বীর মুক্তিযোদ্ধা ঘটনাস্থলে শহীদ হন এবং অনেকে আহত হন। ২জন মুক্তিযোদ্ধা হানাদার বাহিনীর হাতে ধরা পড়েন। এ দুজন মুক্তিযোদ্ধার হদিশ পাওয়া যায়নি। তাই ২৭নভেম্বর ১৯৭১ তারিখ শেষ রাতে মুক্তিযোদ্ধারা আক্রমন জোরদার করে পাকবাহিনীর ক্যাপ্টেন জং এর ঘটির পতন ঘটান এবং জগন্নাথদিঘীর উত্তর দক্ষিন দিকে ১০ কিলোমিটার এলাকা মুক্ত করেন এবং এ এলাকার সর্ব প্রথম স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করে মুজিব নগর সরকারকে অবহিত করেন ।শহীদ বীর মুক্তিযোদ্দাদের স্মৃতির উদ্দেশ্যে জগন্নাথদীঘি ইউনিয়নে বেতিয়ারা বুদ্ধিজীবি স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করা হয়। এটি ঢাকা-চট্টগ্রাম হাইওয়ের পাশে অবস্থিত।