মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কার্যবিবরণী ও গুরুত্বপুর্ন সিদ্ধান্ত

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

উপজেলা পরিষদ

চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্না।

 

চৌদ্দগ্রাম উপজেলা পরিষদের ৫৭ তম সাধারণ সভার কার্যবিবরণীঃ

 

সভার সভাপতি      ঃ  জনাব আবদুস ছোবহান ভূঁইয়া, চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম।

সভার তারিখ         ঃ  ২৬/১২/২০১৩ খ্রিঃ।                               সভার সময়ঃ বেলা ১১ঃ৩০ টা।

সভার স্থান            ঃ  উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষ, চৌদ্দগ্রাম ।

সভায় উপস্থিত সদস্যবৃন্দের তালিকা পরিশিষ্ট  ‘‘ক’’-তে উলেস্ন­খ করা হলো।

            সভার শুরম্নতে সভাপতি উপস্থিত সদস্যগণকে স্বাগত জানিয়ে সভায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রামকে আলোচ্যসূচি মোতাবেক সভার কার্যক্রম পরিচালনার জন্য অনুরোধ জানান।

০২। বিগত সভার কার্যবিবরণী পাঠ ও অনুমোদনঃ

উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রাম সভায় বিগত সভার কার্যবিবরণী উপস্থাপন করেন এবং কোনরূপ সংশোধনী থাকলে তা উপস্থাপনের জন্য সংশিস্ন­ষ্ট সকলকে অনুরোধ জানান। বিগত সভার কার্যবিবরণীর কোন সংশোধনী না থাকায় তা সর্বসম্মতিক্রমে দৃঢ়ীকরণ করা হয়।

০৩। সর্বশেষ নতুন বিধি, সার্কুলার,পরিপত্রের বিষয়ে আলোচনাঃ

      সভায় কোন বিভাগ হতে নতুন কোন পরিপত্র/সার্কুলার উপস্থাপন করা হয়নি।

০৪। উপদেষ্টা মহোদয়ের পরামর্শ বিষয়ে আলোচনাঃ

উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রাম সভায় জানান, উপজেলা পরিষদের উন্নয়ন কর্মকান্ডসহ সার্বিক কার্যক্রম পরিচালনার বিষয়ে জনাব মোঃ মুজিবুল হক এমপি ও মাননীয় মন্ত্রী, রেলপথ ও ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার এর মূল্যবান পরামর্শ নিয়ে উপজেলা পরিষদের সার্বিক কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

৫। বিগত সভার সিদ্ধামত্ম সমূহ বাসত্মবায়নের বিষয়ে আলোচনাঃ

            বিগত সভায় গৃহীত সিদ্ধামত্ম সমূহের বাসত্মবায়ন অগ্রগতির বিষয়ে বিভাগীয় কর্মকর্তাগণ স্ব-স্ব-বিভাগের কাজের অগ্রগতির বিষয়ে সভায় বিসত্মারিত বক্তব্য প্রদান করেন। এ বিষয়ে সভায় বিসত্মারিত আলোচনামেত্ম নিম্নোক্ত সিদ্ধামত্ম গৃহীত হয়।

সিদ্ধামত্মঃ

ক) সভায় গৃহীত সিদ্ধামত্মসমূহ বাসত্মবায়নের ফলোআপ রিপোর্ট এবং সভার কার্যপত্র(যদিথাকে) যথাসময়ে জমা দিতে হবে।

বাসত্মবায়নেঃ বিভাগীয় কর্মকর্তা, সংশিস্নষ্ট সকল।

০৬। উপজেলা পরিষদের নিকট হসত্মামত্মরিত বিভাগ সমূহের বিভাগীয় কার্যক্রম বিষয়ে আলোচনাঃ

সভায় বিভিন্ন বিভাগের উন্নয়ন কার্যক্রম ও অন্যান্য বিষয়ে বিসত্মারিত আলোচনা অনুষ্ঠিত হয় এবং সর্বসম্মতিক্রমে নিম্নোক্ত সিদ্ধামত্ম সমূহ গৃহীত হয়।

ক্রঃ নং

আলোচ্য বিষয়

আলোচনা

 সিদ্ধামত্ম

বাসত্মবায়নকারী কর্তৃপক্ষ।

০১।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরঃ

জনাব মোঃ লিয়াকত আলী, উপজেলা প্রকৌশলী, চৌদ্দগ্রাম সভায় তার বিভাগের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ডের বিষয়ে বিসত্মারিত তথ্য উপস্থাপন করেন।  তিনি সভায় জানান, বার বার তাগিদ দেয়ার পরও এ পর্যমত্ম ৬ টি ইউনিয়ন হতে এডিপি’র প্রকল্প তালিকা পাওয়া গিয়েছে। অবশিষ্ট ০৭ টি ইউনিয়ন হতে প্রকল্প তালিকা না পাওয়ার কারণে প্রকল্প সমূহ যাচাই-বাছাই করে চূড়ামত্ম করা যাচ্ছে না। তিনি সংশিস্নষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানগণকে জরম্নরী ভিত্তিতে প্রকল্প তালিকা জমা দেয়ার জন্য পুনরায় অনুরোধ জানান। তিনি আরো জানান, বিদ্যালয় বিহীন গ্রাম হিসাবে কেস্কীমুড়া গ্রামে একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মাণ করা হবে। বুদ্দিন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উত্তর নারায়নপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মাণের প্রয়োজনীয় জমি না থাকায় উক্ত দু’টি বিদ্যালয়ে ভার্টিক্যাল ভবন নির্মাণ করা হবে।

          জনাব মোঃ সহিদুল হক শাহীন, চেয়ারম্যান, কাশিনগর ইউপি সভায় জানান, তার ইউনিয়নের ডোল সমূদ্র জলার মাঝ দিয়ে একটি রাসত্মা আছে। উক্ত রাসত্মার একটি ছোট ব্রিজ/কালভার্ট ভেংগে পড়েছে। ফলে উক্ত রাসত্মা দিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে এবং জনগনের চলাচলে খুবই সমস্যা হচ্ছে। তাই উক্ত ব্রিজ/কালভার্টটি জরম্নরী ভিত্তিতে পুনঃনির্মাণের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তিনি অনুরোধ জানান।

          জনাব মোঃ মাহবুবুল হক মজুমদার, চেয়ারম্যান, জগন্নাথদিঘী ইউপি সভায় বলেন, গত বছরের এডিপি’র কাজ ভাল হয়েছে। তাই গত বছরের ন্যায় এবছরও এডিপি’র কাজগুলো ইউপি চেয়ারম্যানগণের মাধ্যমে সম্পাদনের জন্য তিনি অনুরোধ জানান।

     জিএম জাহিদ হোনে টিপু, চেয়ারম্যান, বাতিসা ইউপি সভায় জানান, প্রতিটি ইউনিয়নে রাসত্মার কাজে আরএমপি’র মহিলা কর্মী নিয়োজিত রয়েছে। কিন্তু তাদেরকে কোথাও কাজ করতে দেখা যায় না। তারা বেতনের সময় হলে ফিল্ড সুভারভাইজারকে টাকা দিয়ে বেতন নিয়ে যায়। বর্তমানে শুস্ক মৌসুম চলছে। বর্তমান মৌসুমে আরএমপি মহিলা কর্মীরা যেন নিয়মিত উপস্থিত থেকে রাসত্মার কাজ করে এবং তাদের উপর যেন ইউনিয়ন পরিষদের নিয়ন্ত্রন থাকে সে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তিনি সংশিস্নষ্ট কর্তৃপÿকে অনুরোধ জানান।

        আলোচনায় অংশ নিয়ে জনাব আবদুস ছোবহান ভূঁঞা, চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম সভায় বলেন, ইউনিয়ন পরিষদ হতে প্রকল্প প্রসত্মাব না পাওয়ার কারণে প্রকল্প প্রক্রিয়াকরণের কাজ বিলম্বিত হচ্ছে। তিনি সংশিস্নষ্ ইউপি চেয়ারম্যানগণকে আগামী ০৭(সাত)দিনের মধ্যে প্রকল্প প্রসত্মাব জমা দেয়ার অনুরোধ জানান। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কোন ইউনিয়ন হতে প্রকল্প প্রসত্মাব না পাওয়া গেলে তার জন্য অপেÿা না করে সংশিস্নষ্ট ইউনিয়নের বরাদ্দ অন্য সকল ইউনিয়নে বিভাজন করে প্রকল্প প্রক্রিয়াকরণের কাজ শেষ করার জন্য তিনি পরামর্শ প্রদান করেন।

ক) সংশিস্নষ্ট ইউনিয়ন সমূহে আগামী ০৭(সাত) দিনের মধ্যে এডিপি’র প্রকল্প প্রসত্মাব জমা দিতে হবে।

খ) নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কোন ইউনিয়ন হতে প্রকল্প প্রসত্মাব না পাওয়া গেলে সংশিস্নষ্ট ইউনিয়নের বরাদ্দ অপরাপর ইউনিয়ন সমূহের মধ্যে বিভাজন করে প্রকল্প তালিকা চূড়ামত্ম করা হবে।

গ) ডোল সমূদ্র জলার রাসত্মার ভাংগা ব্রিজ/কালভার্ট খানা জরম্নরী ভিত্তিতে মেরামত/পুনঃনির্মাণের ব্যবস্থা নিতে হবে।

ঘ) আরএমপি মহিলা কর্মী নিয়োগ যথাযথ প্রক্রিয়ায় করতে হবে এবং তাদের কাজ নিয়মিত মনিটর করতে হবে।

ক) +খ) +গ) +ঘ) উপজেলা প্রকৌশলী, চৌদ্দগ্রাম।

০২।

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরঃ

        জনাব মোঃ খালেদু্জামান, সহকারী প্রকৌশলী, ডিপিএইচই, চৌদ্দগ্রাম সভায় তার বিভাগীয় কাজের বিসত্মারিত তথ্য উপস্থাপন করেন। তিনি আরো জানান, চলতি বছরে এখনো নলকূপের কোন বরাদ্দ পাওয়া যায়নি।

          আলোচনায় অংশ নিয়ে জনাব আবদুস ছোবহান ভূঁইয়া, চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম সভায় বলেন, বিগত বছরে এ উপজেলায় ২৮ টি নলকূপ স্থাপন করা হয়েছিল। কিন্তু অধিকাংশ নলকূপের ÿÿত্রে কার্যাদেশ মোতাবেক ৭০ ফুট পর্যমত্ম বসানো হয়নি। এছাড়াও ঠিকাদারের লোকজন সুবিধাভোগীদেরকে লেবারকে খাওয়ানোর টাকা দেয়ার জন্য বলছে। তিনি বিষয়টি তদমত্ম করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের পরামর্শ প্রদান করেন।

         জনাব মোঃ সহিদুল হক শাহীন, চেয়ারম্যান, কাশিনগর ইউপি সভায় জানান, প্রায় ১ থেকে ১,১/২ বছর পূর্বে তার ইউনিয়নে কয়েকটি নলকূপ বসানো হয়েছিল।  কিন্তু তখন নলকূপগুলোর পাকার কাজ করা হয়নি। উক্ত পাকার কাজ শেষ করার জন্য জনগণ তাকে প্রতিনিয়ত বিরক্ত বরছে।

ক) বিভাগীয় কার্যক্রমে আরো গতিশীলতা আনতে হবে।

খ) নলকূপ স্থাপনকারী ঠিকাদারের বিরম্নদ্ধে আনিত অভিযোগ সমূহ তদমত্ম করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

ক)+খ) সহকারী প্রকৌশলী, ডিপিএইচই, চৌদ্দগ্রাম।

০৩।

উপজেলা কৃষি বিভাগঃ

উপজেলা কৃষি অফিসার, চৌদ্দগ্রাম এর প্রতিনিধি সভায় বলেন, রোপা আমন ফসল ভাল হয়েছে। সামনে বোরো মৌসুম। বর্তমানে মাঠে সরিষা ও আলু ফসল রয়েছে। বোরা মৌসুমে ১২,৪৪০ হেঃ জমিতে বোরো আবাদের লÿ্যমাত্রা ধার্য করা হয়েছে। তিনি সভায় কৃষি বিভাগ কর্তৃক পরিচালিত কার্যক্রমের বিষয়ে বিসত্মারিত বক্তব্য প্রদান করেন এবং তার বিভাগীয় কাজে কোন সমস্যা নেই বলে জানান।

ক) বিভাগীয় কার্যক্রমে আরো গতিশীলতা আনতে হবে।

ক) উপজেলা কৃষি অফিসার, চৌদ্দগ্রাম।

০৪।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা বিভাগঃ

ডাঃ মোঃ মজিবুল হক, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম সভায় স্বাস্থ্য বিভাগের কাজের বিসত্মারিত তথ্য উপস্থাপন করেন। তিনি জানান, গত ২১ শে ডিসেম্বর তারিখে জাতীয় টিকা দিবস উদ্যাপিত হয়েছে। ঐ দিন এ উপজেলার ৮২,৬৬৭ জন শিশুকে ফোলিও টিকা দেয়া হয়েছে এবং ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হয়েছে।  এ উপজেলায় কোন ফোলিও রোগী নেই। আগামী ২৫ জানুয়ারী থেকে ১৩ ফেব্রম্নয়ারী পর্যমত্ম শিশুদেরকে হামের ভেকসিন দেয়া হবে। উক্ত কাজে অতীতের ন্যায় সংশিস্নষ্ট সকলকে সহযোগিতা প্রদানের জন্য তিনি অনুরোধ জানান। তিনি আরো বলেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেস্নক্সের আবাসিক ভবন সমূহের অবস্থা খুবই খারাপ। ১৯ জন ডাক্তারের মধ্যে মাত্র ৭ জন ডাক্তারকে বাসা দেয়া সম্ভব হয়েছে। তিনি ডাক্তার ও নার্সদের আবাসন সমস্যা নিরসনের জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেস্নক্সে কোয়ার্টার নির্মাণের জন্য তিনি অনুরোধ জানান।

        জিএম জাহিদ হোনে টিপু, চেয়ারম্যান, বাতিসা ইউপি বলেন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা শিশুদের ফোলিও টিকা দেয়ার বিষয়ে যে পরিসংখ্যান উলেস্নখ করেছেন তা যদি সঠিক হয় তবে ধরে নিতে হবে স্বাস্থ্য বিভাগ জন্ম নিয়ন্ত্রনের বিষয়ে সঠিকভাবে কাজ করছে না।

        আলোচনায় অংশ নিয়ে জনাব আবদুস ছোবহান ভূঁইয়া, চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম সভায় বলেন, দরিদ্র রোগীরা প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা গ্রহণের জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেস্নক্সে গেলে হয়রানির শিকার হচ্ছে। পূর্বের তুলনায় হয়রানি কিছুটা কমলেও একেবারে নির্মূল হয়নি। তাই এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তিনি অনুরোধ জানান।

ক) বিভাগীয় কার্যক্রমে আরো গতিশীলতা আনতে হবে এবং হাসপাতালের কথিত অনিয়ম সমূহ নির্মূল করার লÿÿ কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

খ) ডাক্তার ও নার্সদের আবাসন সমস্যা দূর করার লÿÿ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেস্নক্সে নতুন আবাসিক ভবন নির্মাণের প্রসত্মাব প্রেরণের সিদ্ধামত্ম গৃহীত হয়।

ক) উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম।

খ) উপজেলা প্রকৌশলী, চৌদ্দগ্রাম।

০৫।

উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগঃ

জনাব রেমিন রায়হান খান, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম সভায় তার বিভাগীয় কার্যক্রমের বিষয়ে বিসত্মারিত বক্তব্য প্রদান করেন এবং তার বিভাগীয় কাজে কোন সদস্যা নেই বলে জানান।

ক) বিভাগীয় কার্যক্রমে আরো গতিশীলতা আনতে হবে।

ক) উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম।

০৬।

উপজেলা সমাজ সেবা বিভাগঃ

বেগম সুলতানা রাজিয়া, উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার, চৌদ্দগ্রাম তার বিভাগ কর্তৃক পরিচালিত কার্যক্রমের বিষয়ে সভায় বিসত্মারিত বক্তব্য প্রদান করেন। তিনি জানান, সরকার চলতি বছর বয়স্ক ভাতা, বিধাব ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা ভোগীদের সংখ্যা ১০% বাড়ানোর সিদ্ধামত্ম গ্রহণ করেছে। এ সংক্রামত্ম সার্কুলারের অনুলিপি সকল ইউপিতে পাঠানো হবে। নীতিমালা মোতাবেক ভাতাভোগীর তালিকা প্রণয়নের জন্য তিনি সংশিস্নষ্ট সকলকে অনুরোধ জানান।  

ক) বিভাগীয় কার্যক্রমে আরো গতিশীলতা আনতে হবে।

খ) নীতিমালা যথাযথভাবে অনুসরণপূর্বক নতুন ভাতাভোগীদের তালিকা প্রণয়ন করতে হবে।

ক) উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার, চৌদ্দগ্রাম।

খ) চেয়ারম্যান, সকল ইউপি, চৌদ্দগ্রাম।

০৭।

উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তার বিভাগঃ

জনাব মোঃ ইব্রাহিম মিয়া, উপজেলা যুব উন্নয়ন অফিসার, চৌদ্দগ্রাম তার বিভাগ কর্তৃক পরিচালিত কার্যক্রমের বিষয়ে সভায় বিসত্মারিত বক্তব্য প্রদান করেন এবং তার বিভাগীয় কাজে কোন সমস্যা নেই বলে জানান। 

ক) বিভাগীয় কার্যক্রমে আরো গতিশীলতা আনতে হবে।

ক) উপজেলা যুব উন্নয়ন অফিসার, চৌদ্দগ্রাম।

০৮।

উপজেলা মৎস্য বিভাগঃ

জনাব মোঃ আমিনুল ইসলাম, সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম সভায় তার বিভাগীয় কাজের বিষয়ে সভায় বিসত্মারিত বক্তব্য প্রদান করেন এবং তাঁর বিভাগীয় কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে চলছে বলে জানান।                    

ক) বিভাগীয় কার্যক্রমে আরো গতিশীলতা আনতে হবে।

ক) সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম।

০৯।

 উপজেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগঃ

জনাব চন্দন কুমার পোদ্দার, উপজেলা প্রানি সম্পদ অফিসার, চৌদ্দগ্রাম তার বিভাগ কর্তৃক পরিচালিত কার্যক্রমের বিষয়ে সভায় বিসত্মারিত বক্তব্য প্রদান করেন। তিনি জানান, যুদ্ধাপরাধী কাদের মোলস্নার ফাঁসির রায় কার্যকরকে কেন্দ্র করে গত ১২ তারিখ রাতে দুস্কৃতিকারীগণ তার অফিসের ১ টি কÿ ভাংচুর এবং অগ্নি সংযোগ করেছে। উক্ত বিষয়ে যথারীতি থানায় জিডি করা হয়েছে।

ক) বিভাগীয় কার্যক্রমে আরো গতিশীলতা আনতে হবে।                  

ক) উপজেলা প্রানি সম্পদ অফিসার, চৌদ্দগ্রাম।

১০।

উপজেলা প্রকল্প বাসত্মায়ন বিভাগঃ

জনাব আবু বকর সিদ্দিক ভূঁইয়া, উপজেলা প্রকল্প বাসত্মবায়ন কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম সভায় তার বিভাগীয় কাজের বিষয়ে বিসত্মারিত বক্তব্য প্রদান করেন। তিনি জানান, টিআর ও ৪০ দিনের প্রকল্পের কাজ চলছে। কাজের অগ্রগতি ভাল। প্রকল্পের কাজ সরেজমিন পরির্দশ করে শেষ কিসিত্মর ডিও ছাড় করা হবে। তিনি আরো জানান, ৬৫০ টি কম্বলের বরাদ্দ পাওয়া গেছে। বরাদ্দ বিভাজন করে কম্বল সমূহ বিতরণের ব্যবস্থা নেয়া হবে। আগামী মাসে কাবিখা প্রকল্পের কাজ শুরম্ন হবে। মুন্সীরহাটে ১ টি ব্রীজ আছে। স্থানীয় লোকজন উক্ত ব্রীজটি নির্বাচিত স্থান হতে ৩০০/৪০০ ফুট দুরে করার জন্য চাপা-চাপি করছে। কিন্তু অন্যত্র ব্রিজটি করা যুক্তিযুক্ত হবে না। কারণ, সেখানে কোন রাসত্মা নেই।

        আলোচনায় অংশ নিয়ে জনাব আবদুস ছোবহান ভূঁইয়া, চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম ইউনিয়নের জনসংখ্যা মোতাবেক কম্বলের বিভাজন করার পরামর্শ প্রদান করেন এবং স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে আলোচনা করে ব্রিজ নির্মাণের স্থান নির্বাচনের পরামর্শ দেন।

ক) ইউপির জনসংখ্যা মোতাবেক কম্বল বিভাজন করতে হবে এবং স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে আলোচনা করে ব্রিজের স্থান নির্বাচন করতে হবে।

ক) উপজেলা প্রকল্প বাসত্মবায়ন কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম।

১১।

উপজেলা শিক্ষা বিভাগ।

 বেগম সাইদা আলম, উপজেলা শিক্ষা অফিসার, চৌদ্দগ্রাম সভায় তার বিভাগীয় কাজের বিষয়ে বিসত্মারিত বক্তব্য প্রদান করেন। তিনি জানান, সংশিস্নষ্ট সকলের সহযোগিতায় এ উপজেলায় সুষ্ঠু ও নকলমুক্ত পরিবেশে প্রাথমিক শিÿা সমাপনী পরীÿা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ উপজেলার সকল স্কুলে নতুন বছরের বই পৌঁছে দেয়া হয়েছে। বইয়ের কোন সংকট নেই। আগামী ২ তারিখে বই বিতরণ উৎসব অনুষ্ঠিত হবে। তিনি বই বিতরণ কাজে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।          

      জনাব দেবময় দেওয়ান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রাম সভায় এ উপজেলার বৃত্তবান ও সমাজসেবী লোকদের উদ্ভুদ্ধ করে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের অমত্মতঃ ০২ টি করে বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল চালু করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ জানান।

      আলোচনায় অংশ নিয়ে জনাব আবদুস ছোবহান ভূঁইয়া, চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম সভায় বলেন, তার নিজের গ্রামের ১ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে, ভাইস চেয়ারম্যান জনাব নুরম্নল ইসলাম হাজারী এর নিজের গ্রামের ১ টি বিদ্যালয়ে, শ্রীপুর ইউনিয়নের ১ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এবং জগন্নাথদিঘী ইউনিয়নের জানে আলম এর গ্রামের ১ টি বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল চালু করার প্রসত্মাব আছে। প্রসত্মাবিত উক্ত বিদ্যালয় সমূহে আগামী মাস হতে মিডডে মিল চালু করার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। 

ক) প্রসত্মাবিত ০৪ টি বিদ্যালয়ে ফেব্রম্নয়ারী,২০১৪ মাস হতে মিড ডে মিল চালু করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

খ) বিভাগীয় কর্মকর্তাগণ বিভাগীয় কাজে ফিল্ড ভিজিটে গেলে সংশিস্নষ্ট এলাকার বিদ্যালয়ে গিয়ে বিদ্যালয়ের পরিবেশ, শিÿকদের উপস্থিতি দেখবেন এবং নিয়মিত পরিদর্শন প্রতিবেদন জমা দিতে হবে।

ক) উপজেলা মাধ্যমিক শিÿা কর্মকর্তা/উপজেলা শিÿা কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম।

 

 

খ) বিভাগীয় কর্মকর্তা, সকল।

১২।

উপজেলা মহিলা বিষয়ক বিভাগ।

উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম তার বিভাগ কর্তৃক পরিচালিত কার্যক্রমের বিষয়ে সভায় বিসত্মারিত বক্তব্য প্রদান করেন। তিনি জানান, দরিদ্র মা’র জন্য মাতৃত্ব ভাতার বরাদ্দ পাওয়া গেছে।  নতুন ভাতাভোগীদের তালিকা তৈরীর জন্য সককে চিঠি দেয়া হয়েছে। নীতিমালা যথাযথভাবে অনুসরণপূর্বক নতুন ভাতাভোগীদের তালিকা প্রণয়নের জন্য সকলকে অনুরোধ জানান। তিনি আরো জানান, পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের মাঠ কর্মীদের নিকট  গর্ভিতা মহিলাদের তালিকা রয়েছে। নতুনভাতাভোগী নির্বাচনে প্রয়োজনে তাদের কাছ থেকে সহযোগিতা নেয়া যাবে।                 

ক) পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের মাঠ কর্মীদের সহযোগিতা নিয়ে নীতিমালা যথাযথভাবে অনুসরণপূর্বক নতুন ভাতাভোগীদের তালিকা প্রণয়ন করতে হবে।

ক) চেয়ারম্যান, সকল ইউপি, চৌদ্দগ্রাম।

১৩।

উপজেলা সমবায় বিভাগ।

জনাব আবু মঈন রাকিব আহমাদ, উপজেলা সমবায় অফিসার, চৌদ্দগ্রাম তার বিভাগ কর্তৃক পরিচালিত কার্যক্রমের বিষয়ে সভায় বিসত্মারিত বক্তব্য প্রদান করেন এবং তার বিভাগীয় কাজে কোন সমস্যা নেই বলে জানান। 

ক) বিভাগীয় কার্যক্রমে আরো গতিশীলতা আনতে হবে।

ক) উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম।

১৪।

উপজেলা পলস্নী উন্নয়ন বিভাগ।

বেগম শাহেদা খানম, উপজেলা পলস্নী উন্নয়ন কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম সভায় তার বিভাগ কর্তৃক পরিচালিত কার্যক্রমের বিষয়ে সভায় বিসত্মারিত বক্তব্য প্রদান করেন এবং তার বিভাগীয় কাজে কোন সমস্যা নেই বলে জানান। 

ক) বিভাগীয় কার্যক্রমে আরো গতিশীলতা আনতে হবে।

ক) উপজেলা পলস্নী উন্নয়ন কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম।

১৫।

উপজেলা মাধ্যমিক শিÿা বিভাগ।

দেওয়ান মোঃ জাহাংগীর, উপজেলা মাধ্যমিক শিÿা অফিসার, চৌদ্দগ্রাম তার বিভাগ কর্তৃক পরিচালিত কার্যক্রমের বিষয়ে সভায় বিসত্মারিত বক্তব্য প্রদান করেন। দেওয়ান মোঃ জাহাংগীর, উপজেলা মাধ্যমিক শিÿা কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম সভায় জানান, ইতোমধ্যে সকল বিদ্যালয়ে নতুন বছরের বই পৌঁছানো হয়েছে। আগামী ২ তারিখে উৎসবের মাধ্যমে ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে বই বিতরণ করা হবে। সকল স্কুল কর্তৃপÿকে বই বিতরণ উৎসব আয়োজনের জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। বই বিতরণ কাজে সহযোগিতা প্রদানের জন্য তিনি সকলকে অনুরোধ জানান। তিনি আরো জানান, মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় গত ১৫/১১/২০১৩ তারিখে উপজেলা পরিষদ কমপেস্নক্সের অভ্যমত্মরে আইসিটি ভবন নির্মাণ কাজ উদ্বোধন করেছেন। উক্ত ভবনের নির্মাণ কাজ শুরম্ন হয়েছে। ইতোমধ্যে বিআরডিবি’র চেয়ারম্যান উক্ত ভবন নির্মাণের বিরম্নদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। তিনি মামলার অরজিতে বলেছেন, ১৯৭৪ সালে উপজেলা পরিষদ বিআরডিবি কে ১.০০ একর জায়গা দিয়েছে। সেই জায়গাতেই ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে। তিনি উক্ত মামলার বিষয়ে করনীয় সম্পর্কে জানতে চান।

        আলোচনায় অংশ নিয়ে জনাব আবদুস ছোবহান ভূঁইয়া, চেয়ারম্যান,উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম সভায় বলেন, সরকার বিআরডিবিকে জায়গার দলিল দিয়ে থাকলে সেটা তাদের জায়গা। এতে কারো কোন আপত্তি থাকবে না। বিষয়টি যাই হউক পারস্পরিক আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে নিষ্পত্তি করা সম্ভব।

        জনাব দেবময় দেওয়ান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রাম বলেন, উপজেলা পরিষদ কমপেস্নক্সের অভ্যমত্মরের সকল জায়গা পরিষদের। উপজেলা পরিষদ উক্ত ভূমির ভূমি উন্নয়ন কর দিয়ে যাচ্ছেন। জমি ব্যবহার করতে দেয়া এক বিষয় এবং জমির মালিকানা হসত্মামত্মর করা অন্য বিষয়।  বিআরডিবি এখনো তাদেরকে উক্ত জমির মালিকানা হসত্মামত্মর করা হয়েছে মর্মে কোন প্রমানপত্র দেখাতে পারেনি। বর্ণিত মামলায় উপজেলা পরিষদকে পÿভূক্ত করা হয়নি।

         জনাব মোঃ মমিনুল ইসলাম, চেয়ারম্যান, উজিরপুর ইউপি সভায় বলেন, বিগত প্রায় ১ বছর পুর্বে আইসিটি ভবনের জন্য জমি প্রদানের বিষয়ে সভায় আলোচনা হয়েছে। বিআরডিবি বলছে, তাদেরকে ১৯৭৪ সনে জমি দেয়া হয়েছে এবং তারা নিয়মিত খাজনা দিয়ে আসছেন।

         জনাব মোঃ শাহজালাল মজুমদার, চেয়ারম্যান, শ্রীপুর ইউপি সভায় বলেন, বিআরডিবি সরকারের একটি প্রতিষ্ঠান এবং উপজেলা আইসিটি ভবনও সরকারের একটি প্রতিষ্ঠান। তাই বিআরডিবিকে কিভাবে এবং কি কি শর্তে জমি দেয়া হয়েছে তা দেখা দরকার। উপজেলা মা এবং তার বিভাগীয় কাজে কোন সমস্যা নেই বলে জানান। 

ক) চেয়ারম্যান, শ্রীপুর ইউপিকে মামলার বাদীর সাথে আলোচনা করে আইসিটি ভবন নির্মাণের বিরম্নদ্ধে দাখিলকৃত মামলাটি আপোষের মাধ্যমে নিষ্পত্তির দায়িত্ব দেয়া হয়। তিনি বিষয়টি নিষ্পত্তি করতে না পারলে উপজেলা পরিষদের পÿÿ মামলা পরিচালনার সিদ্ধামত্ম গৃহীত হয়।

খ) উপজেলা মাধ্যমিক শিÿা কর্মকর্তা প্রমাপ অনুযায়ী নিয়মিতভাবে স্কুল পরিদর্শন করবেন এবং প্রত্যেক সভায় পরিদর্শনের বিষয়ে তথ্য উপস্থাপন করবেন।

ক) চেয়ারম্যান, শ্রীপুর ইউপি, চৌদ্দগ্রাম।

০৭। বিবিধ আলোচনাঃ

 

ক) ভিশন-২০২১ঃ ডিজিটাল বাংলাদেশ অগ্রগতি ও অর্জন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রাম সভায় ভিশন-২০২১ ডিজিটাল বাংলাদেশ অগ্রগতি ও অর্জন বিষয়ে বিসত্মারিত আলোচনা করেন। তিনি ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্রের কার্যক্রম, কম্পিউটার শিক্ষার প্রসার এবং সাইবার অপরাধের বিষয়ে উপজেলা আইসিটি কমিটি/ফোরামের মাধ্যমে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশিস্ন­ষ্ট সকলকে অনুরোধ জানান। তিনি ইউআইএসসিগুলো চালু রাখার জন্য সংশিস্ন­ষ্ট সকলকে অনুরোধ জানান এবং ইউআইএসসি এর কার্যক্রম মনিটর করার উপর গুরম্নত্বারোপ করেন। তিনি উপজেলার ওয়েব পোর্টালকে আরো তথ্য সমৃদ্ধ ও নান্দনিক করার লÿÿ্য বিভাগীয় কর্মকর্তাগণকে প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে সহযোগিতা প্রদানের অনুরোধ জানান।

ক) ইউ আইএসসি এর কার্যক্রমে আরো গতিশীলতা আনতে হবে এবং ইউআইএসসি- এর উদ্যোক্তাগণ কর্তৃক নিয়মিতভাবে দৈনিক আয়ের তথ্য আপলোড করার বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।

খ) উপজেলার ওয়েব পোর্টালকে আরো তথ্য সমৃদ্ধ ও নান্দনিক করার লÿÿ্য বিভাগীয় কর্মকর্তাগণ স্ব-স্ব বিভাগের কর্মকান্ডের যাবতীয় তথ্যাদির সফ্ট কপি উপজেলা নির্বাহী অফিসার এর নিকট জমা দিবেন।

ক) চেয়ারম্যান, সকল ইউপি, চৌদ্দগ্রাম।

 

খ) বিভাগীয় কর্মকর্তা, সকল।

 

খ) উপজেলা পরিষদের নব নির্মিত ভবনে অফিস/কÿ বরাদ্দ প্রদান বিষয়ে আলোচনা।

জনাব মোঃ লিয়াকত আলী, উপজেলা প্রকৌশলী, চৌদ্দগ্রাম সভায় জানান, উপজেলা পরিষদের নতুন ভবন নির্মাণের কাজ শেষ হয়েছে। ইতোমধ্যে মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় কর্তৃক ভবনটি উদ্বোধন করা হয়েছে। নব-নির্মিত ভবনে অফিস/কÿ বরাদ্দ প্রদানের বিষয়ে সিদ্ধামত্ম প্রদানের জন্য তিনি সভায় অনুরোধ জানান।  তিনি আরো জানান, নব-নির্মিত ভবনে চলাচলের জন্য একটি লিংক রোড নির্মাণ করতে হবে। উক্ত লিংক রোড নির্মাণের জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগ হতে বরাদ্দ পাওয়া যাবে। তাই তিনি লিংক রোড নির্মানের জন্য একটি প্রাক্কলন তৈরীর অনুমতি প্রদানের অনুরোধ জানান।        

        আলোচনায় অংশ নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রাম সভায় জানান, উপজেলা পরিষদের পরিত্যক্ত পুরাতন ভবনটিতে বর্তমানে উপজেলা কৃষি অফিস, উপজেলা পরিসংখ্যান অফিস, উপজেলা খাদ্য অফিস, উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজারের অফিস, উপজেলা প্রকল্প বাসত্মবায়ন অফিস এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাধারণ শাখার দাপ্তরিক কার্যক্রম চলছে। প্রাথমিক পর্যায়ে উক্ত অফিস সমূহ পরিত্যক্ত ভবন হতে স্থানামত্মর করতে হবে। এছাড়াও উপজেলা মৎস্য অফিস, উপজেলা মহিলা বিষয়ক অফিস, উপজেলা মাধ্যমিক শিÿা অফিস, উপজেলা সেটেলমেন্ট অফিস এবং উপজেলা যুব উন্নয়ন অফিসের স্থান সংকুলান না হওয়ায় উক্ত অফিস সমূহের জন্য কÿ বরাদ্দ চেয়ে সংশিস্নষ্ট অফিস প্রধানগণ পত্র দিয়েছেন। তাই সার্বিক বিষয় বিবেচনা করে পরিত্যক্ত ভবন থেকে নতুন ভবনে অফিস স্থানামত্মর/ স্থান সংকুলানের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

 

ক) উপজেলা পরিষদের নতুন ভবনে অফিস/কÿ বরাদ্দ প্রদানের বিষয়ে সুপারিশ প্রদানের জন্য নিম্নে বর্ণিত কর্মকর্তা/ব্যক্তিবর্গের সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠণ করা হয়ঃ

১) চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, চৌদ্গ্রাম- সভাপতি

২) উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রাম- সদস্য-সচিব

৩) জনাব নুরম্নল ইসলাম হাজারী, ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম - সদস্য

৪) বেগম রাশেদা আখতার, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম - সদস্য

৫) উপজেলা প্রকৌশলী, চৌদ্দগ্রাম- সদস্য

৬) উপজেলা মাধ্যমিক শিÿা অফিসার, চৌদ্দগ্রাম- সদস্য

৭) চেয়ারম্যান, শ্রীপুর ইউপি- সদস্য

৮) চেয়ারম্যান, গুনবতী ইউপি-সদস্য

খ) উপজেলা পরিষদের নব-নির্মিত ভবনে চলাচলের জন্য লিংক রোড নির্মাণের লÿÿ প্রাক্কলন তৈরীর সিদ্ধামত্ম গৃহীত হয়।

ক) সংশিস্নষ্ট কমিটি।

খ) উপজেলা প্রকৌশলী, চৌদ্দগ্রাম।

 

গ) চিওড়া ইউপির অচলাবস্থা নিরসনের বিষয়ে আলোচনা।

জনাব মোঃ আবু তাহের, চেয়ারম্যান, চিওড়া ইউপি সভায় বলেন, তার পরিষদের কয়েকজন মেম্বার দীর্ঘ দিন যাবৎ পরিষদের সভায় অনুপস্থিত রয়েছেন। তাদেরকে  ডাকযোগে কিংবা  বাহক মারফত ইউপি সভার নোটিশ দেয়া হয়েছে। কিন্তু তারা নোটিশ রাখেন নাই। তারা পরিষদের সভায় অনুপস্থিত থেকে ইউনিয়ন পরিষদের উন্নয়ন কর্মকান্ডে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে। এদিকে ২০১২-২০১৩ অর্থ বছরের এলজিএসপির সম্পূর্ণ বরাদ্দ একাউন্টে অব্যয়িত অবস্থায় পড়ে আছে। ইউপি সভায় মেম্বারদের অনুপস্থিতির কারণে এলজিএসপির অর্থে কাজও সম্পাদন করা যাচ্ছে না। মেম্বারদের অনুপস্থিতির বিরম্নদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে। উক্ত অভিযোগ তদমত্মক্রমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তিনি অনুরোধ জানান। তিনি ইউনিয়ন পরিষদের উন্নয়ন কর্মকান্ড চালিয়ে যাওয়ার স্বার্থে এলজিএসপি প্রকল্পের বিপরীতে গৃহীত প্রকল্প সমূহ অনুমোদন প্রদানের জন্য অনুরোধ জানান।         

ক) ইউপি মেম্বার অনুপস্থিতির বিষয়টি তদমত্ম করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

খ) সংশিস্নষ্ট নীতিমালা পর্যালোচনা করে এলজিএসপি প্রকল্প সমূহ অনুমোদনের বিষয়ে পরবর্তীতে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ক)+খ) উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রাম।

 

ঘ) বিভিন্ন বিভাগীয় কর্মকর্তাণের পরিষদের সভায় উপস্থিত থাকা প্রসংগে।

জনাব মোঃ শাহজালাল মজুমদার, চেয়ারম্যান, শ্রীপুর ইউপি সভায় বলেন, উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা সভায় না থাকার কারণে ২০১১ সনের আদমশুমারীর তথ্য জানা যাচ্ছে না। উক্ত তথ্য না জানার কারনে বহু পুরানো তথ্যের ভিত্তিতে বরাদ্দ বিভাজন হচ্ছে। তিনি আরো জানান, উপজেলা পরিষদের নিকট ন্যাসত্ম নয় এমন বিভাগের কর্মকর্তাগণ সভায় অনুপস্থিত থাকায় সে সকল বিভাগের কার্যক্রম সম্পর্কে কিছু জানা যাচ্ছে না। তাই অন্যান্য বিভাগীয় কর্মকর্তাগণকেও সভায় উপস্থিত রাখার জন্য তিনি অনুরোধ জানান।

ক) উপজেলা পরিষদের নিকট ন্যাসত্ম নয় এমন সকল বিভাগীয় কর্মকর্তাগণকে উপজেলা পরিষদেও সাধারন সভায় উপস্থিত থাকার জন্য আমন্ত্রণ জানাতে হবে।

ক)উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রাম।

 

ঙ) বৈদ্যুতিক খরচের বিল অনুমোদনের বিষয়ে আলোচনা।

জনাব মোঃ লিয়াকত আলী, উপজেলা প্রকৌশলী, চৌদ্দগ্রাম সভায় জানান,  বিরোধী দল কর্তৃক আবহানকৃত কয়েকটি দফায়  হরতাল/অবরোধ চলাকালে এ উপজেলার আইন-শৃংখলা রÿার কাজে নিয়োজিত বিজিবি’র সদস্যদের আবাসান সুবিধা প্রদানের লÿÿ তাদের ব্যবহৃত কÿÿ বৈদ্যুতিক সংযোগ প্রদানের জন্য তাৎÿনিক প্রয়োজনে  ৬,১৩৫/-(ছয় হাজার একশত পঁয়ত্রিশ) টাকার বৈদ্যুতিক মালামাল ক্রয় করতে হয়েছে। উক্ত মালামাল ক্রয়ের ব্যয়োত্তর অনুমোদন প্রদানের জন্য তিনি অনুরোধ জানান।

ক) বর্ণিত কাজে ৬,১৩৫/-(ছয় হাজার একশত পঁয়ত্রিশ) টাকার বৈদ্যুতিক মালামাল ক্রয়ের বিল উপজেলা রাজস্ব তহবিলের রÿণাবেÿণ খাত হতে পরিশোধের ব্যয়োত্তর অনুমোদন প্রদান করা হয়।

ক)উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রাম/ উপজেলা প্রকৌশলী, চৌদ্দগ্রাম।

 

চ) ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস, ২০১৩ উদ্যাপন সংক্রামত্ম খরচের বিল অনুমোদন বিষয়ে অলোচনা।

জনাব দেবময় দেওয়ান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রাম সভায় জানান, ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস, ২০১৩ যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে উদ্যাপনের লÿÿ চৌদ্দগ্রাম উপজেলা পরিষদ কর্তৃক বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে। গৃহীত কর্মসূচি সমূহ বাসত্মবায়নের লÿÿ্য কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠান, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, শিশুদের চিত্রাংকন ও রচনা প্রতিযোগিতা, মহিলাদের ক্রীড়া অনুষ্ঠানসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের প্রতিযোগীদের প্রদানের জন্য সর্বমোট ৪৭,৭৮০/-(সাত চলিস্নশ হাজার সাতশত আশি) টাকার পুরস্কার ক্রয় করা হয়েছে। উক্ত পুরস্কার ক্রয়ের বিল ২০১৩-২০১৪ অর্থ বছরের বাজেট বরাদ্দের ‘জাতীয় দিবস উদযাপন সংক্রামত্ম ব্যয়’ খাত হতে পরিশোধের ব্যয়োত্তর অনুমোদন প্রদানের অনুরোধ জানান।

ক) ১৬ ডিসেম্বর,২০১৩ উদ্যাপন উপলÿÿ পুরস্কার ক্রয় খাতে ব্যয়িত ৪৭,৭৮০/-(সাত চলিস্নশ হাজার সাতশত আশি) টাকার বিল ২০১৩-২০১৪ অর্থ বছরের বাজেট বরাদ্দের ‘জাতীয় দিবস উদযাপন সংক্রামত্ম ব্যয়’ খাত হতে পরিশোধের ব্যয়োত্তর অনুমোদন দেয়া হয়।

ক) উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রাম।

 

ছ) বিজ্ঞাপন বিল পরিশোধ বিষয়ে আলোচনা।

জনাব মোঃ লিয়াকত আলী, উপজেলা প্রকৌশলী, চৌদ্দগ্রাম সভায় জানান, যে উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন কাজে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রদানের প্রেক্ষিতে সংশিস্নস্ট মুদ্রণকারী প্রতিষ্ঠানের নিকট হতে বিল পরিশোধের জন্য দাখিল করা হয়েছে। নিম্নে বিলের বিসত্মারিত উলেস্নখ করা হলোঃ

ক্রঃ নং 

কাজের নাম/ বিলের বিবরণ

পত্রিকার নাম

টাকার পরিমান

০১। 

বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির আওতায় ২০১২-২০১৩ সনে আবহানকৃত  দরপত্র  বিজ্ঞপ্তি নং ০৮/২০১২-২০১৩

দৈনিক ভোরের কাগজ

২৫,৭৬৬/৯০

দৈনিক নিউজ টুডে

২০,৪২৪/০০

০২।

রাজস্ব তহবিলের আওতায় ২০১২-২০১৩ সনে আবহানকৃত  দরপত্র  বিজ্ঞপ্তি নং ০১/২০১৩-২০১৪

দি নিউ নেশন   

৮,৫০০/০০

দৈনিক ভোরের পাতা

৪,৭৮৪/০০

০৩।

উপজেলা পরিষদের জন্য ০১ জন টেনিশিয়ান নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি

দৈনিক রূপসী বাংলা

১০,৭৬৪/০০

উপরোক্ত কাজের মুদ্রন খরচের বিল সমূহ উপজেলা রাজস্ব তহবিল হতে পরিশোধের অনুমোদন প্রদানের জন্য তিনি অনুরোধ জানান।

ক) বর্ণিত বিল সমূহ উপজেলা রাজস্ব তহবিল হতে পরিশোধের অনুমোদন দেয়া হয়।

ক) উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রাম/ উপজেলা প্রকৌশলী, চৌদ্দগ্রাম।

 

জ) উপজেলা পরিসংখ্যান বিভাগ, উপজেলা পলস্নী বিদ্যুৎ বিভাগ, বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগ, বন বিভাগ, উপজেলা খাদ্য বিভাগ, উপজেলা আনসার ও ভিডিপি বিভাগের কার্যক্রম উপজেলা পরিষদের কার্যবিবরণীতে অমর্ত্মূক্তির বিষয়ে আলোচনা।

বেগম রাশেদা আখতার, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান এবং জনাব মোঃ শাহজালাল মজুমদার, চেয়ারম্যান, শ্রীপুর ইউপিসহ অপরাপর ইউপি চেয়ারম্যানগণ সভায় জানান, উপজেলা পরিসংখ্যান বিভাগ, উপজেলা পলস্নী বিদ্যুৎ বিভাগ, বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগ, বন বিভাগ, উপজেলা খাদ্য বিভাগ, উপজেলা আনসার ও ভিডিপি বিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তাগণ উপজেলা পরিষদের সাধারন সভায় উপস্থিত না থাকার কারণে এ উপজেলার সার্বিক উন্নয়নে উক্ত বিভাগ সমূহের গৃহীত কার্যক্রম সম্পর্কে সভায় আলোচনা করা সম্ভব হচ্ছে না। তাই উক্ত বিভাগ সমূহের বিভাগীয় কর্মকর্তাগণকে উপজেলা পরিষদের সভায় উপস্থিত থাকাসহ তাদের কার্যক্রম সভার কার্যবিবরনীতে অমত্মর্ভূক্ত করা প্রয়োজন।

ক) উপজেলা পরিসংখ্যান বিভাগ, উপজেলা পলস্নী বিদ্যুৎ বিভাগ, বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগ, বন বিভাগ, উপজেলা খাদ্য বিভাগ, উপজেলা আনসার ও ভিডিপি বিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তাগণকে উপজেলা পরিষদের সভায় উপস্থিত থাকার জন্য আমন্ত্রণ জানানোসহ উক্ত বিভাগ সমূহের কার্যক্রম সভার কার্যবিবরনীতে অমত্মর্ভূক্তির সিদ্ধামত্ম গৃহীত হয়।

 

 

ক) উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রাম।

                বেগম রাশেদা আখতার, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম সভায় বলেন , এখনো উপজেলা পরিষদের অনুমোদিত বাজেটের পুরাপুরি বাসত্মবায়ন হয়নি।  তিনি উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তার নিকট হতে হালনাগাদ তথ্য সংগ্রহ করে উক্ত তথ্যের ভিত্তিতে যাবতীয় বরাদ্দ বিভাজনের অনুরোধ জানান। তিনি কিন্ডার গার্টেনের বই সরবরাহ বন্ধ না করে কোন সুনির্দিষ্ট অভিযোগ থাকলে তাদের বিরম্নদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানান। তিনি স্ট্যানিং কমিটির সদস্য-সচিবগণকে এখন হতে নিয়মিতভাবে কমিটির সভা করার জন্য অনুরোধ জানান। তিনি ইউপি চেয়ারম্যানগণকে এলজিএসপির নীতিমালা মোতাবেক উঠান বৈঠক আয়োজনের অনুরোধ জানান। তিনি বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার অনুরোধ জানান এবং উৎসবের আমেজে নতুন বছরে ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে বই বিতরণের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশিস্নষ্টদের প্রতি অনুরোধ জানান।

            জনাব নুরম্নল ইসলাম হাজারী, ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম সভায় বলেন, উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ওয়াজ -মাহফিলে উচকানীমূলক বক্তব্য দেয়া হয়। এ নিয়ে যে কোন সময় এলাকাতে বিশৃংখলা সৃষ্টি হতে পারে। তাই কোথাও ওয়াজ-মাহফিল করার পূর্বে উপজেলা প্রশাসনের নিকট হতে অনুমতিপত্র গ্রহণের নিয়ম চালু করতে হবে। তিনি এখন হতে নিয়মিতভাবে স্ট্যান্ডিং কমিটির সভা অনুষ্ঠানের জন্য সংশিস্নষ্ট সকলকে অনুরোধ জানান।

            জনাব আবদুস ছোবহান ভূঁইয়া, চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম সভায় বলেন,  উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনার বিষয়ে সম্মানিত ইউপি চেয়ারম্যানগণ বিভন্ন দিক নির্দেশনা দিয়েছেন এবং বিভাগীয় কর্মকর্তাগণও কার কি দায়িত্ব তা বুঝতে পেরেছেন। ফলে আগামীতে সুন্দরভাবে উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনা করা সম্ভব হবে।

            পরিশেষে আর কোন আলোচনা না থাকায় সভাপতি উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

 

 

            (আবদুস ছোবহান ভূঁইয়া)

                     চেয়ারম্যান

                উপজেলা পরিষদ

                           চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­া­

                                   ও

                               সভাপতি।

 

স্মারক নং- ০৫.৪২.১৯৩১.০০০.০১.০০২.১৩- ৩৫ (৫০)                                                       তারিখঃ ১৫ /০১/২০১৪ খ্রিঃ।

 

                        অনুলিপিঃসদয় অবগতির জন্য।

০১। সচিব, স্থানীয় সরকার বিভাগ, স্থানীয় সরকার, পলস্ন­ী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ সচিবালয়, ঢাকা।

০২। জেলা প্রশাসক, কুমিলস্ন­া।

০৩। চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­া।

                       অবগতি ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য।

০৪। উপ-পরিচালক, স্থানীয় সরকার, কুমিলস্ন­া।

০৫। মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়ের একামত্ম সচিব। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় মন্ত্রী, রেলপথ মন্ত্রণালয় ও ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় এর সদয় অবগতির জন্য।

০৬। ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­া।

০৭। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্না।

০৮। মেয়র, চৌদ্দগ্রাম পৌরসভা, কুমিলস্ন­া।

০৯। উপজেলা .................................................................................. অফিসার, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­­া।

১০। চেয়ারম্যান,..................................................... ........ইউনিয়ন পরিষদ( সকল), চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­­া।

১১। সংরক্ষণ নথি।

 

(দেবময় দেওয়ান)

প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা

উপজেলা পরিষদ

চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­া।

 

 

পরিশিষ্ট ‘‘ক’’

২৬/১২/২০১৩ তারিখে অনুষ্ঠিত চৌদ্দগ্রাম উপজেলা পরিষদের ৫৭ তম সাধারণ সভার উপস্থিতি (স্বাক্ষরের ক্রমানুসারে)ঃ

(নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি সদস্যবৃন্দ)

ক্রমিকনং

নাম

পদবী

 ঠিকানা

     মমত্মব্য

০১।

আলহাজ্ব নুরম্নল ইসলাম হাজারী

ভাইস চেয়ারম্যান

উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম

অনুপস্থিত

০২।

বেগম রাশেদা আখ্তার

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান

উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম,

অনুপস্থিত

০৩।

জনাব মোঃ মিজানুর রহমান

মেয়র

চৌদ্দগ্রাম পৌরসভা

অনুপস্থিত

০৪।

মোঃ সহিদুল হক শাহীন

চেয়ারম্যান

কাশিনগর ইউনিয়ন

অনুপস্থিত

০৫।

জনাব মোঃ মমিনুল ইসলাম

চেয়ারম্যান

উজিরপুর ইউনিয়ন

উপস্থিত

০৬।

সালাহ্ উদ্দিন মজুঃ লিংকন

চেয়ারম্যান

কালিকাপুর ইউনিয়ন

অনুপস্থিত

০৭।

মোঃ শাহ জালাল মজুমদার

চেয়ারম্যান

শ্রীপুর ইউনিয়ন

অনুপস্থিত

০৮।

মোঃ আলমগীর কবির মজুমদার

চেয়ারম্যান

শুভপুর  ইউনিয়ন

অনুপস্থিত

০৯।

জনাব মোঃ ওয়াজী উল­াহ ভূঁঞা

চেয়ারম্যান

ঘোলপাশা ইউনিয়ন

উপস্থিত

১০।

মোঃ মাহফুজ আলম

চেয়ারম্যান

মুন্সীরহাট ইউনিয়ন

উপস্থিত

১১।

জি এম জাহিদ হোসেন টিপু

চেয়ারম্যান

বাতিসা ইউনিয়ন

উপস্থিত

১২।

মোঃ ইকবাল হোসেন মজুঃ

চেয়ারম্যান

কনকাপৈত ইউনিয়ন

অনুপস্থিত

১৩।

মোঃ আবু তাহের

চেয়ারম্যান

চিওড়া ইউনিয়ন

উপস্থিত

১৪।

মোঃ মাহবুবুল হক খাঁন

চেয়ারম্যান

জগন্নাথদিঘী ইউনিয়ন

অনুপস্থিত

১৫।

মোঃ আনোয়ার হোসেন

চেয়ারম্যান

গুনবতী ইউনিয়ন

অনুপস্থিত

১৬।

মোঃ ইসমাইল হোসেন বাচ্চু

চেয়ারম্যান

আলকরা ইউনিয়ন

অনুপস্থিত

(উপজেলা পরিষদের নিকট ন্যসত্মকৃত বিভাগ সমূহের কর্মকর্তা সদস্যবৃন্দ )

ক্রমিক নং

নাম

পদবী ও ঠিকানা

মমত্মব্য

০১।

জনাব মোহাম্মদ মাহিদুর রহমান

উপজেলা নির্বাহী অফিসার,চৌদ্দগ্রাম।

উপস্থিত

০২।

ডাঃ মোঃ মজিবুল হক

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার,চৌদ্দগ্রাম

উপস্থিত

০৩।

জনাব আমজাদ হোসেন

উপজেলা কৃষি অফিসার, চৌদ্দগ্রাম।

উপস্থিত

০৪।

জনাব চন্দন কুমার পোদ্দার

উপজেলা প্রানি সম্পদ অফিসার,চৌদ্দগ্রাম।

উপস্থিত

০৫।

জনাব মোঃ লিয়াকত আলী

উপজেলা প্রকৌশলী, চৌদ্দগ্রাম।

উপস্থিত

০৬।

জনাব আমিনুল ইসলাম

সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা,চৌদ্দগ্রাম।

উপস্থিত

০৭।

বেগম সাইদা আলম

উপজেলা শিক্ষা অফিসার,চৌদ্দগ্রাম।

উপস্থিত

০৮।

বেগম রাজিয়া সুলতানা

উপজেলা সমাজসেবা অফিসার,চৌদ্দগ্রাম।

উপস্থিত

০৯।

জনাব রেমিন রায়হান খান

উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসার,চৌদ্দগ্রাম।

উপস্থিত

১০।

জনাব মোঃ ইব্রাহিম মিয়া

উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম।

উপস্থিত

১১।

জনাব মোঃ আবু বকর ছিদ্দিক

উপজেলা প্রকল্প বাসত্মবায়ন অফিসার,চৌদ্দগ্রাম।

উপস্থিত

১২।

জনাব মোঃ খালেদুজ্জামান

সহকারী প্রকৌশলী(জন স্বাস্থ্য),চৌদ্দগ্রাম।

উপস্থিত

১৩।

বেগম নাছরীন আক্তার

উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা,চৌদ্দগ্রাম।

উপস্থিত

১৪।

দেওয়ান মোঃ জাহাংগীর

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা,চৌদ্দগ্রাম।

উপস্থিত

১৫।

শেখ শাহেদা খানম

উপজেলা পলস্নী উন্নয়ন কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম।

উপস্থিত

১৬।

জনাব আবু মঈন রাকিব আহমাদ

উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম।

উপস্থিত

১৭।

জনাব মোঃ রফিক

ফরেস্টার, সামাজিক বনবিভাগ, চৌদ্দগ্রাম

উপস্থিত

-০০-

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়

চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া।

 

২৬ ডিসেম্বর, ২০১৩ তারিখে অনুষ্ঠিত চৌদ্দগ্রাম উপজেলা আইন-শৃংখলা কমিটির সভার কার্যবিবরণী

 

সভাপতি              ঃ দেবময় দেওয়ান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্না।

সভার তারিখ         ঃ ২৬/১২/২০১৩ খ্রিঃ                                             সভার সময়ঃ সকাল ১০ঃ৩০ টা।

সভার স্থান            ঃ উপজেলা পরিষদ মিলনায়তন, চৌদ্দগ্রাম।

সভার উপস্থিতি পরিশিষ্ট ‘‘ক’’।      

        

            সভার শুরম্নতে সভাপতি উপস্থিত সকলকে স্বাগত জানিয়ে সভার কাজ শুরম্ন করেন। সভায় গত ২৮/১১/২০১৩ তারিখে অনুষ্ঠিত সভার কার্যবিবরণী পাঠ করে শুনানো হয় এবং কোনরূপ সংশোধনী না থাকায় তা দৃঢ়ীকরণ করা হয়।

আলোচ্য বিষয়ঃ

১ । অপরাধচিত্র-ডিসেম্বর/ ২০১৩

মাসের নাম

ডাকাতি

দস্যুতা

খুন

দাঙ্গা

অপহরণ

নারী নির্যাতন

পুলিশ আক্রামত্ম

সিঁদেল চুরি

পশু চুরি

অন্যান্য চুরি

অস্ত্র আইন

বিস্ফোরক

চোরাচালান

দ্রম্নত বিচার

মাদক দ্রব্য

অন্যান্য

মোট

নভেম্বর/১৩

-

-

-

-

-

-

-

-

-

১১

২৯

অক্টোবর/১৩

-

-

-

-

-

-

-

-

-

-

-

১১

১৭

৩৪

 

২ । আলোচনা ও সভায় গৃহীত সিদ্ধামত্ম সমূহঃ

ক্রমিক নং

আলোচ্য বিষয়

  সিদ্ধামত্ম

বাসত্মবায়ন

০১

ক) অপরাধচিত্র পর্যালোচনাঃ

অপরাধচিত্র পর্যালোনায় দেখা যায়, অক্টোবর/২০১৩ মাসের তুলনায় নভেম্বর/২০১৩ মাসে মামলার সংখ্যা কম। নভেম্বর/২০১৩ মাসে মোট ২৯টি মামলা হয়েছে, এর মধ্যে কোন খুনের ঘটনা নেই।

ক) অপরাধ প্রবনতা নিয়ন্ত্রনে রাখা এবং যে কোন গুরম্নতর অপরাধ প্রতিরোধে অফিসার ইন চার্জ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।

ক) অফিসার ইন চার্জ, চৌদ্দগ্রাম থানা।

০২

খ) আইন শৃংখলা পরিস্থিতি পর্যালোচনাঃ

নভেম্বর/২০১৩ মাসে থানায় ২৯টি মামলা হয়েছে। তন্মধ্যে সন্ত্রাস সংক্রামত্ম ৩টি, নারী নির্যাতন সংক্রামত্ম ৪ টি, পুলিশ আক্রামত্ম ১টি, দুর্ঘটনা সংক্রামত্ম ১ টি, মাদক সংক্রামত্ম ৮টি, চোরাচালান সংক্রামত্ম ১ টি এবং অন্যান্য ১১ টি মামলা। আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি পর্যালোচনায় দেখা যায় যে, চৌদ্দগ্রাম উপজেলার সার্বিক আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি বিগত মাসের তুলনায় ভাল রয়েছে। নভেম্বর/২০১৩ মাসে এ উপজেলায় কোন খুনের ঘটনা ঘটনা ঘটেনি। উপজেলার সার্বিক আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রয়েছে।

ক) চৌদ্দগ্রাম উপজেলার আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখার লক্ষ্যে সকলকে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা গ্রহণ অব্যাহত রাখতে হবে।

খ) সকল ইউনিয়নে আইন শৃংখলা পরিস্থিতি অবনতিকর যে কোন ধরণের ঘটনা বা সম্ভাবনা দেখলে অনতিবিলম্বে উপজেলা প্রশাসনকে জানানোর জন্য সকল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানগণকে অনুরোধ করা হয়।

ক) আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী সকল বিভাগ।

খ) চেয়ারম্যান, সকল ইউপি।

০৩

গ) অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারঃ 

বিবরণী পর্যালোচনায় দেখা যায়, আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী কর্তৃক নভেম্বর/২০১৩ মাসে এ উপজেলায় কোন অবৈধঅস্ত্র উদ্ধার হয়নি। অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের বিষয়ে আরো সচেষ্ট হওয়ার জন্য সংশিস্ন­ষ্ট সকলকে অনুরোধ করা হয়।

(ক) আইন শৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখার লক্ষ্যে আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী সকল সংস্থা অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে আরো তৎপর হবেন।

 (খ) এ উপজেলার যে কোন এলাকায় অবৈধ অস্ত্র প্রদর্শণের সংবাদ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সংশিস্নষ্ট বিভাগ কর্তৃক প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করতে হবে।

ক)+খ)আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী সংশিস্নষ্ট বিভাগ এবং চেয়ারম্যান, সকল ইউপি, চৌদ্দগ্রাম।

০৪

ঙ) জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাসবাদ প্রতিরোধ সংক্রামত্মঃ

জনাব মোঃ আতিকুলস্না, ফিল্ড সুপারভাইজার, ইসলামিক ফাউন্ডেশন, চৌদ্দগ্রাম সভায় জানান যে, ইসলামিক ফাউন্ডেশন কর্তৃক নিয়মিতভাবে বিভিন্ন মসজিদ, মাদ্রাসা ও এতিমখানায় সভা করে যৌতুক বিরোধী, জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাসবাদ বিরোধী বক্তব্য প্রদান করা হচ্ছে। উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে মোট ৬০টি মসজিদে তার বিভাগের কার্যক্রম চলছে এবং উক্ত মসজিদগুলোতে খোৎবায় নিয়মিতভাবে বয়ান দেয়া হচ্ছে। প্রতিটি জুম্মায় ভিন্ন ভিন্ন মসজিদে খোৎবায় জঙ্গীবাদ, সন্ত্রাসবাদ ও যৌতুক বিরোধী বিষয়ে বয়ান দেয়া হচ্ছে।

(ক) উপজেলা পর্যায়ের সন্দেহভাজন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর কার্যক্রম সার্বক্ষণিক মনিটর করতে হবে এবং জঙ্গী তৎপরতার কোন সংবাদ পেলে সঙ্গে সঙ্গে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে অবহিত করতে হবে।

(খ) উপজেলার সকল মসজিদে জুমার নামাজে পবিত্র খুতবা তিলাওয়াতের পূর্বে ইমামগণ যেন মুসলস্ন­ীদের উদ্দেশ্যে সচেতনতামূলক বক্তব্য পেশ করেন তা নিশ্চিত করতে হবে।

গ) ইসলামিক ফাউন্ডেশনের আওতাধীন ইউনিয়ন ভিত্তিক মসজিদের তালিকা সংশিস্নষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানগণকে সরবরাহ করতে হবে।

ক) চেয়ারম্যান, সকল ইউপি, চৌদ্দগ্রাম।

খ)ফিল্ড সুপারভাইজার, ইসলামিক ফাউন্ডেশন, চৌদ্দগ্রাম এবং চেয়ারম্যান, সকল ইউপি, চৌদ্দগ্রাম।

০৫

চ) মাদক দ্রব্য ও চোরাচালান নিয়ন্ত্রনঃ

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ এর প্রতিনিধিগন জানান যে, চৌদ্দগ্রাম উপজেলার সীমামেত্ম অবস্থিত ০৬ টি বিওপি কর্তৃক নভেম্বর/২০১৩ মাসে ৪৬ টি মামলার বিপরীতে ১২,০৩,১০০/- টাকার মালামাল উদ্ধার করা হয়েছে। বিগত মাসের চেয়ে মামলা অনেক বেশী  হয়েছে এবং মালামাল উদ্ধারও অনেক বেশী হয়েছে। তবে নভেম্বর/২০১৩ মাসে বিজিবি কর্তৃক মালামালের সাথে ০১ জন আসামী ধৃত হয়েছে। বিজিবি’র প্রতিনিধিগণ জানান, মাদক ব্যবসায়ীরা বিজিবি’র গতিবিধির উপর সার্বÿণিক নজর রাখে এবং কখন কোন্ দিকে বিজিবি যাচ্ছে তা মোবাইলে জানিয়ে দেয়া হচ্ছে। ফলে মালামালের সাথে মাদক ব্যবসায়ীদেরকে ধরা অত্যমত্ম কঠিন হয়ে পড়েছে। তবে চোরাচালান প্রতিরোধে বিজিবি সক্রিয় রয়েছে এবং এ উপজেলার প্রতিটি পয়েন্ট বিজিবির সক্রিয় নজরদারীতে রয়েছে।

(ক) মাদকদ্রব্য ও চোরাচালানের বিরম্নদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণসহ এর কুফল সম্পর্কে জনগণকে সচেতন করতে হবে।

(খ) সীমামত্মবর্তী ইউনিয়নগুলোতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, মসজিদের ঈমাম এবং গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সমন্বয়ে প্রতি মাসের ১২ তারিখের মধ্যে মাদকদ্রব্য ও চোরাচালান বিরোধী সভা করতে হবে এবং  প্রতিমাসে ভিন্ন ভিন্ন স্থানে সভা করে সভার কার্যবিবরণী সংশিস্ন­­ষ্ট বিভাগে প্রেরণ করবেন।

(গ) সীমামত্মবর্তী ইউনিয়নগুলোতে মাদক দ্রব্য ও চোরাচালান বিরোধী  টাস্কফোর্স অভিযান পরিচালনার কার্যক্রম বৃদ্ধি করতে হবে।

ক) +খ) চেয়ারম্যান, সকল ইউপি, চৌদ্দগ্রাম।

গ) উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রামসহ আইন প্রয়োগকারী অন্যান্য সকল সংস্থা।

০৬

ছ) বাজার মনিটরিং কমিটি কর্তৃক নিয়মিত বাজার মনিটরঃ

সভাপতি, উপজেলা বাজার মনিটরিং কমিটি সভায় জানান- বাজারে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য-সামগ্রীর মূল্য যৌক্তিক ও সহনীয় পর্যায়ে রাখার লক্ষ্যে উপজেলার বিভিন্ন বাজার পরিদর্শনের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। এছাড়াও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য-সামগ্রী মজুদ করে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি না করার বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিভিন্ন বাজারে নিয়মিত কার্যক্রম চলছে।

(১) বাজারে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য-সামগ্রীর মূল্য স্থিতিশীল পর্যায়ে রাখা এবং দ্রব্য-সামগ্রী বেচা-কেনায় অনিয়ম প্রতিরোধে বাজার মনিটরিং কমিটি কর্তৃক নিয়মিত বাজার মনিটর অব্যাহত রাখতে হবে।

ক) সভাপতি, উপজেলা বাজার মনিটরিং কমিটি।

 

সভায় উপস্থিত সম্মানিত সদস্যগণের বক্তব্য পর্যায়ক্রমে নিম্নে উপস্থাপন করা হলোঃ

 

০১। জনাব উত্তম কুমার চক্রবর্তী, অফিসার ইন-চার্জ, চৌদ্দগ্রাম থানা সভায় জানান, বর্তমানে এ উপজেলার সার্বিক আইন শৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রয়েছে। নভেম্বর,২০১৩ মাসে চৌদ্দগ্রাম থানায় ২৯টি মামলা হয়েছে। যা বিগত মাসের চেয়ে অনেক কম। নভেম্বর/২০১৩ মাসে চৌদ্দগ্রাম থানায় সন্ত্রাস সংক্রামত্ম ৩ টি, নারী নির্যাতন সংক্রামত্ম ৪ টি, পুলিশ আক্রামত্ম ১ টি, দূঘটনা সংক্রামত্ম ১ টি, মাদক সংক্রামত্ম ৮টি, চোরাচালান সংক্রামত্ম ১ টি এবং অন্যান্য ১১ টি মামলা হয়েছে। গত মাসে পুলিশ আইন-শৃংখলা রÿাসহ অন্যান্য কাজে নিয়োজিত থাকার কারণে মাদক ও চোরাচালানের বিষয়ে বেশী নজর দেয়া সম্ভব হয়নি। অন্যথায় মাদক ও চোরাচালান সংক্রামত্ম মামলার সংখ্যা অনেক বেশী হতো।  তিনি আরো জানান, এ উপজেলায় নম্বর বিহীন অনেক মোটর সাইকেল চলাচল করছে। তবে মাদকসেবীদের বিরম্নদ্ধে ও মোটর সাইকেলের বিষয়ে অভিযান পরিচালনা করা হলে থানায় তদবীর বেড়ে যায়। খুনের মামলা জোর করে মিমাংসা করা যায় না। তিনি খুনের মামলার বিষয়ে আইনগত বিধি-বিধান মেনে কাজ করার জন্য সংশিস্নষ্ট সকলকে অনুরোধ জানান। তিনি আরো বলেন, ইট,বালু, সিমেন্ট ও মাটি বহনকারী ট্রাকটর যত্র-তত্র চলাচলের কারণে এ উপজেলার ফিডার রোডসহ অনেক রাসত্মার ব্যাপক ÿতি হচ্ছে। তাই ট্রাকটর চলাচলের উপর নিয়ন্ত্রণ আরোপ করা প্রয়োজন। বিরোধী দলের রাজনৈতিক কর্মসূচির কারণে আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি অস্থিতিশীল হয়ে উঠছে। ইতোমধ্যে বেশ কিছু সংখ্যক সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। থানায় বেশ কিছু সংখ্যক গ্রেপ্তারী পরোয়ানা পেন্ডিং রয়েছে। ৪৫ কিঃ মিঃ মহাসড়কের নিরাপত্তার কাজে পুলিশকে ব্যসত্ম থাকতে হচ্ছে। তাই গ্রেপ্তারী পরোয়ানা তামিলের দিকে নজর দেয়া যাচ্ছে না। তিনি সম্মানিত ইউপি চেয়ারম্যানগণকে থানায় এসে সংশিস্নষ্ট এলাকার গ্রেপ্তারী পরোয়ানাগুলোর তালিকা পর্যালোচনা করে আসামী গ্রেপ্তারসহ মামলা নিষ্পত্তি কাজে সহযোগিতা প্রদানের জন্য অনুরোধ জানান।

০২। জনাব মাহবুবুল হক মজুমদার, চেয়ারম্যান, জগন্নাথদিঘী ইউপি সভায় বলেন, তার ইউনিয়নে এখনো কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। তবে ২০০১ সনে তার এলাকার হিন্দু ধর্মালম্বীদের মন্দিরে হামলা চালানো হয়েছিল। তাই উক্ত মন্দির সমূহের নিরাপত্তার স্বার্থে তার এলাকায় পুলিশের টহল  জোরদার করার অনুরোধ জানান।

 ০৩। জনাব মোঃ সহিদুল হক শাহীন, চেয়ারম্যান, কাশিনগর ইউপি সভায় বলেন, শ্রীপুর ইউনিয়নের পারম্নয়ারা গ্রামের ইদ্রছ মিয়া নামে একজন মাদক ব্যবসায়ী রয়েছে। তার বাড়িতে নিয়মিত মাদকের আড্ডা চলে। উক্ত মাদকের আড্ডায় বিভিন্ন এলাকা থেকে লোক আসে। সে তোরঠ্যেং ও শংকুনি সাপের ব্যবসা করে বলে জানা যায়। তার কারণে কাশিনগর ইউনিয়নে অশামিত্ম বিরাজ করছে এবং অনেক মানুষ প্রতারণার শিকার হচ্ছে। তাকে ইতোপূর্বে কয়েকবার গ্রেপ্তার করা হয়েছে। কিন্তু সে ছাড়া পেয়ে পুনরায় মাদকের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। তাকে আইনের আওতায় আনার জন্য তিনি অনুরোধ জানান।

০৪। জনাব মোঃ আনোয়ার হোসেন, চেয়ারম্যান, গুনবতী ইউপি সভায় বলেন, তার ইউনিয়নের চাপাচৌ ও কর্তাম গ্রামে জামায়াত শিবিরের সন্ত্রাসীদের আসত্মানা রয়েছে। সেখানে মাদকের নিয়মিত আড্ডা চলে। উক্ত আসত্মানায় অভিযান পরিচালনা করার জন্য তিনি অনুরোধ জানান। তিনি আরো জানান, মেক্স গ্রম্নপের লোকজন এবং সংশিস্নষ্ট কমিটির লোকজনের সহযোগিতা নিয়ে তিনি রেল লাইনের নাশকতা প্রতিরোধে কাজ করে যাচ্ছেন। কয়েকদিন আগে অবরোধ চলাকালীন সময়ে ফকিরবাজার এলাকাতে গুনবতীর সাব-রেজিস্ট্রার এর সিএনজি থামিয়ে তার নিকট হতে মোবাইল ও নগদ অর্থ ছিনতাই করা হয়েছে। এ বিষয়ে তিনি থানায় জিডি করেছেন। থানায় চিহ্নিত ছিনতাইকারীদের নাম দেয়া হয়েছে। তাদেরকে গ্রেপ্তারের জন্য তিনি অনুরোধ জানান। তিনি আরো জানান, শ্রীপুর গ্রামের তরম্নন বয়সী কিছু ছেলের কারনে গ্রামের শামিত্ম -শৃংখলা বিঘ্নিত হচ্ছে। তাদের ভয়ে মানুষ দিনের বেলাতেও ঘরে তালা দিয়ে থাকতে হচ্ছে। তাই উক্ত গ্রামে পুলিশের মোবাইল টিমের টহল জোরদার করার জন্য তিনি অনুরোধ জানান। তিনি আরো বলেন, লোকজন কোন নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে রাসত্মার উপর ঘরবাড়ি নিমার্ণ করছে। তাই এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদÿÿপ গ্রহণের জন্যও তিনি অনুরোধ জানান।

 ০৫। জনাব মোঃ মাহফুজুর রহমান, চেয়ারম্যান, মুন্সীরহাট ইউপি সভায় বলেন, ট্রাকটরের বিষয়টি ব্রিক ফিল্ডের সাথে সম্পর্কযুক্ত। ব্রিক ফিল্ডের কারণে দেশে কৃষি জমি দিন দিন কমে যাচ্ছে। নতুন ব্রিক ফিল্ড হলে জমি নষ্ট হবে এবং পরিবেশ নষ্ট হবে। ব্রিক ফিল্ডের কারণে আম ও কাঁঠাল গাছে ফল ধরছে না। চান্দিশকরা, ফেলনা ও দেড়কোটা গ্রামে নির্দিষ্ট কিছু সন্ত্রাসী রয়েছে। তারা এলাকার লোকজনকে জিম্মি করে রেখেছে। উক্ত এলাকার সন্ত্রাসীদের বিরম্নদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তিনি অনুরোধ জানান।

০৬। জিাএম জাহিদ হোসেন টিপু, চেয়ারম্যান, বাতিসা ইউপি সভায় বলেন,  তার ইউনিয়নে জামায়াত শিবিরের সন্ত্রাসীদের উৎপাত আছে। তারা চৌদ্দগ্রাম থেকে চিওড়া পর্যমত্ম এলাকাতে মহাসড়কে তান্ডব চালায়। এ সকল সন্ত্রাসীদের বিষয়ে খবর দেয়ার সাথে সাথে যেন পুলিশকে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তিনি অনুরোধ জানান। তিনি আরো বলেন, বাতিসা ইউনিয়নে বৈদ্দের বাজারে মাসড়কের উপর একটি কাঁচামালের বাজার সৃষ্টি করা হয়েছে। প্রায়শঃই মহাসড়কের ট্রাক উক্ত বাজারের ভিতর ঢুকে যায়। এতে যে কোন সময় প্রাণহানির আশংকা রয়েছে। তাই উক্ত বাজারটি বন্ধ করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তিনি অনুরোধ জানান। 

০৭। জনাব মোঃ আবু তাহের, চেয়ারম্যান, চিওড়া ইউপি সভায় বলেন, বেশীরভাগ সিএনজি নম্বর বিহীন অবস্থায় চলাচল করছে। এসকল নম্বর বিহীন সিএনজিগুলো চুরি-ডাকাতির সাথে জড়িত। তারা সরকারের ট্যাক্স ফাঁকি দিচ্ছে।  তাই নম্বর বিহীন সিএনজি’র বিরম্নদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তিনি অনুরোধ জানান। 

০৮। জনাব মোঃ শাহজালাল মজুমদার, চেয়ারম্যান, শ্রীপুর ইউপি সভায় বলেন, তিনি যা বলতেন অফিসার ইন চার্জ এর বক্তব্যে তা এসে গেছে। মাননীয় মন্ত্রী বহু কষ্টের বিনিময়ে এ উপজেলার রাসত্মা সমূহ পাকা করেছেন। ভবিষ্যতে কেউ এসে এই পাকা রাসত্মাগুলোর মেরামত করতেও পারবেন না। কিন্তু ট্রাকটর চলাচলের কারণে মূল্যবান রাসত্মাগুলোর ব্যাপক ÿতি হচ্ছে। ইতোপূর্বে সাবেক উপজেলা নির্বাহী অফিসার ব্রিক ফিল্ডের মালিকগণকে নিয়ে সভা করেছিলেন। সভার সিদ্ধামত্ম মোতাবেক ব্রিক ফিল্ডের মালিকগণ সংশিস্নষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে জামানত জমা রেখে মাটি পরিবহনের অনুমতি গ্রহণ করবেন এবং ট্রাকটর চলাচালের কারণে কোন রাসত্মার ÿতি হলে তাদের জমাকৃত ঐ জামানতের অর্থ দিয়ে রাসত্মা মেরামত করা হবে মর্মে সিদ্ধামত্ম হয়েছিল। কিন্তু উক্ত সিদ্ধামত্ম বাসত্মবায়ন হচ্ছে না। একটি ব্রিক ফিল্ডের কাছে একটা এলাকার জনগণ জিম্মি হতে পারে না।  তিনি আরো বলেন, হত্যা মামলার পেছনে অনেক কারণ নিহিত থাকে। নিরীহ জনগন আইন বুঝেন না, কোন মামলার বিষয়ে এলাকার জনগণ আসলে ইউপি চেয়ারম্যানগণ তা মিমাংসার চেষ্টা করেন। তিনি থানার এস আই মিজান সাহেব এর কর্মকান্ডের বিষয়ে সভায় বিসত্মারিত বক্তব্য প্রদান করেন। তার বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ জানান। তিনি উপজেলা আইন-শৃংখলা কমিটির সভায় অফিসার ইন চার্জ ও বিজিবিকে উপস্থিত রাখার অনুরোধ জানান।

১০। জনাব আবদুল জলিল(রিপন), সেক্রেটারী, চৌদ্দগ্রাম প্রেস ক্লাব বলেন, কিছু কিছু শিÿা প্রতিষ্ঠান নামের সাথে স্কুল এ্যান্ড কলেজ লিখে। কিন্তু তাদের কোন অনুমোদন নেই। তারা শুধু টিসি বানিজ্য করে। তিনি অনুমোদন বিহীন হুন্ডা ও ট্রাকটরের সাথে সিএনজি’র বিরম্নদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ জানান। তিনি ফিলিং স্টেশন হতে সিলিন্ডারে গ্যাস ভর্তি করে পাচার করার বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য অনুরোধ জানান। তিনি জামায়াত শিবির কর্তৃক পরিচালিত কেজি স্কুলে বিনা মূল্যে বই বিতরণ না করার অনুরোধ জানান।  তিনি আরো জানান, টেনাফ হতে যে পান আসে সে পানের গাইডের মধ্যে ইয়াবা থাকে বলে জানা গেছে। তাই উক্ত বিষয়টি তলস্নাশী কওে দেয়ার জন্য তিনি সংশিস্নষ্ট কর্তৃপÿকে অনুরোধ জানান।

১১। জনাব ইসমাইল হোসেন বাচ্চু, চেয়ারম্যান, আলকরা ইউপি সভায় বলেন, স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতা নিয়ে তিনি আলকরা ইউনিয়নকে মাদকমুক্ত করার লÿÿ্য কাজ করে যাচ্ছেন। আলকরা ইউনিয়ন ফেনী জেলার সীমামত্মবর্তী হওয়ায় মাদকসেবীরা ফেনী জেলা হতে মোটর সাইকেল যোগে আলকরা ইউনিয়নের দত্তসার, সোনাইচা, সিংগাপুর মার্কেট এবং জগন্নাথদিঘীরপাড় এলাকাতে এসে মাদকের আড্ডা জমায়।  তাই উক্ত এলাকাতে পুলিশ/বিজিবি’র নজরদারী বৃদ্ধি করার জন্য তিনি অনুরোধ জানান।

১২। জিএম জাহিদ হোনে টিপু, চেয়ারম্যান, বাতিসা ইউপি সভায় জানান,যুদ্ধাপরাধী কাদের মোলস্নার মৃত্যুদন্ডের রায় কার্যকরের দিবাগত রাত অনুমান ৫ঃ০০ টায় দুস্কৃতিকারীগণ তার অফিসে অগ্নি সংযোগ করেছে এবং অফিসের গস্নাস ভাংচুর করেছে। এতে তার অফিসের মূল্যবান কছু রেকর্ড ভস্মিভূত হয়েছে। এ বিষয়ে থানায় যথারীতি জিডি করা হয়েছে।

১৩। জনাব সামছুদ্দিন আহমেদ চৌধুরী সেলিম, সদস্য, উপজেলা আইন-শৃংখলা কমিটি সভায় বলেন, বর্তমান অফিসার ইন চার্জ থানায় যোগদানের পর উপজেলার আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে। তবে থানার ২/১ জন পুলিশ সদস্যের অতিরিক্ত বাড়াবাড়ির কারণে থানা পুলিশের বদনাম হচ্ছে। তাই তাদের বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ আবশ্যক।  তিনি আরো বলেন, মাননীয় মন্ত্রী জামায়াতের ক্যাডার ও মাদক ব্যবসায়ীদের পÿÿ কোন তদবির না করার জন্য বলেছেন। মাদক নির্মূলের বিষয়ে সকলে একমত রয়েছে। তাই শক্ত হাতে মাদকের বিরম্নদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।  তিনি বলেন, অবরোধের কারণে হাইওয়ে বন্ধ হয়ে যায়। কিন্তু হাইওয়ে পুলিশ কোন কাজ করে না। তিনি অবরোধের সময়ে মহাসড়কে যাতে কোন প্রকার সমস্যা না থাকে সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ জানান।

১৪। উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রাম সভায় বলেন, মাদক, চোরাচালান ও বাল্য বিবাহ সম্পর্কে কোন তথ্য পাওয়ার সাথে সাথে তাৎÿণিকভাবে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তবে উক্ত বিষয়ে নিরপেÿভাবে সঠিক ও বস্ত্তনিষ্ঠ তথ্য প্রদানের জন্য সংশিস্নষ্ট সকলকে তিনি অনুরোধ জানান। তিনি ইভ টিজিং সম্পর্কে সকলকে সচেতন থাকার এবং কোথাও ইভ টিজিং এর কোন ঘটনা ঘটার সংবাদ পাওয়ার সাথে সাথে তা প্রশাসনকে অবহিত করার অনুরোধ জানান। তিনি জঙ্গীবাদ বিরোধী প্রচারণা অব্যাহত রাখাসহ ইভ টিজিং সম্পর্কে সকল ইউপিতে এবং সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জনসচেতনতামূলক সভা করার জন্য সংশিস্ন­ষ্ট সকলকে অনুরোধ জানান। তিনি মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত লোকদেরকে এবং মাদক ব্যবসার স্থানগুলো চিহ্নিত করে উক্ত বিষয়ে সঠিক তথ্য প্রদানের জন্য সংশিস্নষ্ট সকলকে অনুরোধ জানান। তিনি ইউনিয়ন আইন-শৃংখলা কমিটির সভা নিয়মিতভাবে অনুষ্ঠানের জন্য এবং সভার তারিখ নির্ধারন করে ইউএনও/ওসিকে অবহিত করার জন্যও সম্মানিত ইউপি চেয়ারম্যানগণকে অনুরোধ জানান। তিনি চোরাচালান সংক্রামত্ম কোন তথ্য জানার সাথে সাথে তাকে অবহিত করার জন্যও অনুরোধ জানান।

সভায় চৌদ্দগ্রাম উপজেলার আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির বিষয়ে বিসত্মারিত আলাপ-আলোচনার পর সর্বসম্মতিক্রমে নিন্মোক্ত সিদ্ধামত্ম গৃহীত হয়।

            বিসত্মারিত আলোচনামেত্ম  সভায় সর্বসম্মতিক্রমে নিন্মোক্ত সিদ্ধামত্ম গৃহীত হয়ঃ

 

০১। এখন হতে প্রতিমাসের ১২ তারিখের মধ্যে নিয়মিতভাবে প্রতিটি ইউপিতে ইউনিয়ন আইন-শৃংখলা কমিটির সভা করতে হবে এবং কোন বিষয়ে সুপারিশ থাকলে সভার কার্যবিবরণীসহ উপজেলায় প্রেরণ করতে হবে। এছাড়া ইউপি চেয়ারম্যানগণকে প্রতিটি ইউনিয়নে এলাকার সকল মসজিদের ঈমাম,স্থানীয় গণ্যমান্যব্যক্তি ও নির্বাচিত প্রতিনিধিগণের উপস্থিতিতে জঙ্গীবাদ, সন্ত্রাসবাদ ও মাদক বিরোধী মতবিনিময় সভা করতে হবে। 

বাসত্মবায়নেঃ ক) চেয়ারম্যান, সকল ইউপি, চৌদ্দগ্রাম।

০২। ইভ টিজিং, মাদক, চোরাচালান ও বাল্য বিবাহ সম্প©র্ক নিরপেÿভাবে সঠিক ও বস্ত্তনিষ্ঠ তথ্য প্রদান করতে হবে এবং ইউপি চেয়ারম্যানগণ ইউনিয়ন আইন-শৃংখলা কমিটির সভা করে এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীদের তালিকা প্রণয়নপূর্বক উপজেলা নির্বাহী অফিসার/ সহকারী কমিশনার(ভূমি)/ অফিসার ইন চার্জ, চৌদ্দগ্রাম থানা এর নিকট জমা দিবেন। তালিকা পাওয়ার পর সংশিস্নষ্টদের বিরম্নদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে। 

বাসত্মবায়নেঃ ১। চেয়ারম্যান, সংশিস্নষ্ট সকল ইউপি।

              ২। অফিসার ইন চার্জ, চৌদ্দগ্রাম থানা।

০৩। মাদকের বিরম্নদ্ধে পুলিশ ও বিজিবি’র অভিযান পরিচালনা অব্যাহত রাখতে হবে। বিশেষ করে ফেনীর সীমামত্মবর্তী এলাকাতে মাদকবিরোধী অভিযান জোরদার করতে হবে এবং বিজিবি কর্তৃক অভিযান চালিয়ে কোন মালামাল উদ্ধার করা হলে তা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবহিত করতে হবে এবং থানায় মামলা করতে হবে।

বাসত্মবায়নেঃ অফিসার ইন চার্জ, চৌদ্দগ্রাম থানা /অধিনায়ক, সকল বিওপি।

০৪। ট্রাকটর চলাচলের কারণে রাসত্মা ÿতিগ্রস্থ হওয়ার বিষয়টি মালিক সমিতিকে জানাতে হবে। মালিক সমিতি এ বিষয়ে কোন ব্যবস্থা না নিলে অবৈধভাবে চলাচলকারী ট্রাকটরের বিরম্নদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়া অবৈধভাবে চলাচলকারী হুন্ডা, সিএনজি ও ইজি বাইকের বিরম্নদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

বাসত্মবায়নেঃ অফিসার ইন চার্জ, চৌদ্দগ্রাম থানা।

০৫। প্রতিটি শিÿা প্রতিষ্ঠানে প্রত্যেক মাসে অভিভাবক সমাবেশ করতে হবে এবং উক্ত অভিভাবক সমাবেশে মাদক, বাল্য বিবাহ ও ইভটিজিং সম্পর্কে বক্তব্য প্রদানের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

বাসত্মবায়নেঃ উপজেলা মাধ্যমিক শিÿা কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম।

০৬। সিএনজি ফিলিং স্টেশন হতে সিলিন্ডারে গ্যাস ভর্তি করে পাচার করার বিষয়ে মোবাইল কোর্ট করতে হবে।

বাসত্মবায়নেঃ সংশিস্নষ্ট কর্তৃপÿ।

০৭। স্থানীয় জনগণের সহযোগিতা নিয়ে মহাসড়কের উপর স্থাপিত বাতিসা ইউনিয়নের কাঁচা বাজার(বৈদ্দের বাজার) উচ্ছেদের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

বাসত্মবায়নেঃ চেয়ারম্যান,বাতিসা ইউপি, চৌদ্দগ্রাম।

 

          পরিশেষে আর কোন আলোচনা না থাকায় সভাপতি উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে সভার কাজের সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

 

 

 

                           (দেবময় দেওয়ান)

                       উপজেলা নির্বাহী অফিসার

                            চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া 

         ও সভাপতি।

 

স্মারক নং- ০৫.৪২,১৯৩১.০০০.০১.০০৭.১৩-  ৩৪(৪০)                                                   তারিখঃ  ১৫/০১/২০১৪ খ্রিঃ।

 

            অনুলিপিঃ সদয় জ্ঞাতার্থে ও প্রয়োজনীয় কার্যার্থে।

০১। সচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ সচিবালয়, ঢাকা।

০২। বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট, কুমিলস্ন­­া। 

০৩। পুলিশ সুপার, কুমিলস্ন­­া। 

০৪। চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া। 

০৫। মন্ত্রী মহোদয়ের একামত্ম সচিব, রেলপথ ও ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়, ঢাকা। মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়ের সদয় অবগতির জন্য।

০৬। ভাইস চেয়ারম্যান,উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া। 

০৭। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ,চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া। 

০৮। মেয়র, চৌদ্দগ্রাম পৌরসভা, কুমিলস্ন­­া। 

জ্ঞাতার্থে ও প্রয়োজনীয় কার্যার্থে।

০৯। উপজেলা....................................................................... কর্মকর্তা( সংশিস্নষ্ট সকল), চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া। 

১০। অফিসার ইন চার্জ, চৌদ্দগ্রাম থানা, কুমিলস্ন­­া। 

১১। কোম্পানী কমান্ডার, সীমামত্ম ফাঁড়ি( সকল), চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া। 

১২। চেয়ারম্যান, সংশিস্নষ্ট সকল ইউনিয়ন পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া। 

১৩। ---------------------------------------------------------------------------------------------------------------------।

১৪। সংরক্ষণ নথি।

 

          উপজেলা নির্বাহী অফিসার

                                     চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া। 

 

 

 

 

 

‘‘ পরিশিষ্ট -ক’’

উপজেলা আইন-শৃংখলা কমিটির সভার উপস্থিতি( স্বাক্ষরের ক্রমানুসারে)ঃ

ক্রমিক নং

নাম, পদবী ও ঠিকানা

উপস্থিতি/মমত্মব্য

০১

জনাব মোঃ মিজানুর রহমান, মেয়র, চৌদ্দগ্রাম পৌরসভা, কুমিলস্ন­­া। 

অনুপস্থিত

০২

জনাব সামছুদ্দিন আহমেদ চৌধুরী  সেলিম,সদস্য, উপজেলা আইন-শৃংখলা কমিটি, চৌদ্দগ্রাম। 

উপস্থিত

০৩

জনাব মোঃ শাহ জালাল মজুমদার, চেয়ারম্যান, শ্রীপুর ইউনিয়ন, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া।                  

উপস্থিত

০৪

জনাব ওয়াজী উলস্নাহ ভূঞা খোকন, চেয়ারম্যান, ঘোলপাশা ইউনিয়ন, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া।            

অনুপস্থিত

০৫

জনাব মোঃ মাহফুজ আলম, চেয়ারম্যান, মুন্সীরহাট ইউনিয়ন, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া।                     

উপস্থিত

০৬

জি এম জাহিদ হোসেন টিপু, চেয়ারম্যান, বাতিসা ইউনিয়ন, চৌদ্দগ্রাম কুমিলস্ন­­া। 

উপস্থিত

০৭

জনাব মোঃ আবু তাহের, চেয়ারম্যান, চিওড়া ইউনিয়ন, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া।        

উপস্থিত

০৮

বেগম সুলতানা রাজিয়া, উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া। 

উপস্থিত

০৯

উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া। 

উপস্থিত

১০

জনাব উত্তম কুমার চক্রবর্তী, অফিসার ইন চার্জ, চৌদ্দগ্রাম থানা।

উপস্থিত

১১

জনাব সালাহ্ উদ্দিন মজুঃ লিংকন, চেয়ারম্যান, কালিকাপুর ইউনিয়ন, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া।

অনুপস্থিত

১২

জনাব আবদুল বারিক, সদস্য, উপজেলা আইন-শৃংখলা কমিটি, চৌদ্দগ্রাম।

অনুপস্থিত

১৩

উপজেলা কমান্ডার, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, চৌদ্দগ্রাম।

উপস্থিত

১৪

প্রধান শিক্ষক, চৌদ্দগ্রাম এইচ জে পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় এর প্রতিনিধি।

উপস্থিত

১৫

অধ্যক্ষ, চৌদ্দগ্রাম সরকারী কলেজ এর প্রতিনিধি।

উপস্থিত

১৬

অধিনায়ক, চৌদ্দগ্রাম বিওপি, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া। 

উপস্থিত

১৭

অধিনায়ক, শীবের বাজার বিওপি, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া। 

উপস্থিত

১৮

অধিনায়ক, আমানগন্ডা বিওপি, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া। 

উপস্থিত

১৯

অধিনায়ক, আনন্দপুর বিওপি, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া। 

উপস্থিত

২০

অধিনায়ক, জগন্নাথদিঘী বিওপি, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া। 

উপস্থিত

২১

অধিনায়ক, সাতঘরিয়া বিওপি, চৌদ্দগ্রাম, কুমিলস্ন­­া। 

উপস্থিত

২২

জনাব আঃ জলিল(রিপন), সেক্রেটারী, চৌদ্দগ্রাম প্রেস ক্লাব।

উপস্থিত

২৩

জনাব মোঃ আতিকুলস্না, ফিল্ড সুপারভাইজার, ইসলামিক ফাউন্ডেশন, চৌদ্দগ্রাম।

উপস্থিত

২৪

জনাব মোঃ আনোয়ার হোসেন, চেয়ারম্যান, গুনবতী ইউপি।

উপস্থিত

২৫

জনাব মোঃ ইকবাল হোসেন, চেয়ারম্যান, কনকাপৈত ইউপি।

অনুপস্থিত

২৬

জনাব মোঃ আলমগীর হোসেন, চেয়ারম্যান, শুভপুর ইউপি।

অনুপস্থিত

২৭

জনাব মোঃ ইসমাইল হোসেন বাচ্চু, চেয়ারম্যান, আলকরা ইউপি।

উপস্থিত

২৮

জনাব মোঃ মমিনুল ইসলাম, চেয়ারম্যান, উজিরপুর ইউপি।

উপস্থিত

২৯

জনাব মোঃ  সহিদুল হক শাহীন, চেয়ারম্যান, কাশিনগর ইউপি।

উপস্থিত

৩০

মোঃ মাহবুবুল হক খাঁন, চেয়ারম্যান, জগন্নাথদিঘী ইউপি।

উপস্থিত

৩১

জনাব ভ, ম আফতাবুল ইসলাম, সদস্য, উপজেলা আইন-শৃখলা কমিটি।

অনুপস্থিত

৩২

অধ্যÿ, চৌদ্দগ্রাম নজমিয়া ফাজিল মাদ্রাসা।

উপস্থিত

৩৩

সভাপতি, উপজেলা দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি, চৌদ্দগ্রাম

অনুপস্থিত

-০-